Welcome to Zero to Infinity Q&A. To ask questions or answer any question please Register first. Thank You.

মৃত্যুর পর মানুষের গন্তব্য কোথায়? বিজ্ঞান এর সম্পর্কে কি বলে??

19 like 3 dislike
6,859 views
asked Jan 17, 2014 by Takdir Srf (3,200 points)
28% Accept Rate
Share at -

4 Answers

5 like 1 dislike
answered Jan 25, 2014 by আজাদ (4,232 points)

আইনিস্টাইন প্রমান করেন মহাবিশ্বে মহাকষ বল কাজ করে। তার উদ্দেশ্য ছিল এমন একটি সমীকরন দারা করানো যেটির মাধ্যমে মহাবিশ্বের প্রতিটি জিনিস ব্যাখা করা যাবে।
৮ম শতকের দিকে তড়িৎ বল এবং চৌম্বক বলকে দুটি আলাদা বল হিসাবে ধারনা করা হতো। কিন্তু ম্যাক্সয়েল প্রথম তড়িৎ বল এবং চৌম্বক বলকে ৪টি সমীকরনের মাধ্যমে প্রকাশ করেন। একত্রিত ভাবে তড়িৎ-চৌম্বক বল

16fb12a4460501093396a5b323cb781d.png
57619c6a86c79e56ac806faf21502c90.png
9cab6787646062d6e658cd1e83ad468f.png
339524641f9792ca409073aa67474224.png

তড়িৎ বল এবং চৌম্বক বল মুলত একটি বলে প্রকাশ করা যায় তা আমরা বুঝতে পারি সাধারন একটি ঘটনা বজ্রপাত থেকে, বজ্রপাতের সময় কম্পাসের অদ্ভুত আচরণ। বজ্রপাতের সময় কম্পাসের কাটা উল্ট পাল্টা ঘুরতে থাকে। কারন কম্পাসের কাটা বজ্রপাত থেকে সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের কারনে পৃথিবীর সাধারন চৌম্বক ক্ষেত্রের আকষনের প্রভাব মুক্ত হয়।
এটি ছিল উনিফিকেসন বা একটি সাধারন সমীকরন তৈরির একটি বড় সাফল্য। কিন্তু মহাকর্ষ এবং তড়িৎ-চৌম্বক বলকে একটি সমীকরনে আনাছিল অসম্ভব ব্যাপার। কারন তড়িৎ-চৌম্বক বল, মহাকর্ষ বল থেকে বিলিয়ন গুন বড়। মহাকর্ষ বলের কারনে পৃথিবী সূযের চারদিকে ঘুরে। কিন্তু আমারা পৃথিবীর উপর দারিয়ে আছি কারন পৃথিবীর মহাকর্ষ বল আমাদের পৃথিবীর কেন্দ্রের দিকে টেনে নিতে পারে না। আমরা মাটির উপর দারিয়ে থাকি। মাটি এবং আমাদের মধ্যকার পরমানুর তড়িৎ-চৌম্বক বল মহাকর্ষ বল থেকে শক্তিশালী। মহাকর্ষ বল, পরমানুর তড়িৎ-চৌম্বক বলকে আতিক্রম করতে পারে না। অর্থাত পারমানবিক পর্যায়ে মহাকর্ষ বল খুবি নগ্ন্য। এতে মহাকর্ষ বল ও তড়িৎ-চৌম্বক বলকে একত্রিত করা কঠিন হয়ে পরে।

22474-004-5cd8f015.gif

১৯২০ সালের দিকে নিলস বোর ও তার সদস্যরা আবিস্কার করেন পরমানু সবচেয়ে ছোট পদার্থ নয়। পরমানু তৈরি ইলেক্ট্রন, প্রোটন এবং নিঊট্রনের সম্নয়ে। আর পুরাতন সব থিউরি ব্যার্থ হয় এসবের ব্যাখা দিতে। এসব নতুন কণিকার ব্যাখা দিতে বৈজ্ঞানিকরা দার করান কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স। কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স মুলত আমাদের একটি ধারনা দেয়, কিভাবে পরমানুর মধ্যকার কনিকাগুল কাজ করে। কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স শুধু সম্ভাবনার পরিমাপ করে। যেমন পরমানুতে একটি ইলেক্ট্রন কোথায় অবস্থান করতে পারে তার সম্ভাব্য অবস্থান কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স নির্ণয় করতে পারে। পদার্থের গঠন, আচরন ও গুন ব্যাখা করা সম্ভব কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্সের মাধ্যমে।

১৯৩০ সালের দিকে কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স জনকপ্রিয়তা লাভ করে এবং নানা পরীক্ষা শেষে বেরিয়ে আসে দুইটি নতুন বল। শক্তিশালী নিউক্লিয়ার বল এবং দূর্বল নিউক্লিয়ার বল। শক্তিশালী নিউক্লিয়ার বল প্রোটন ও নিউট্রনকে একত্রে বেধে রাখে নিউক্লিয়াসে। আর নিউট্রন যখন প্রোটনে পরিনত হয় তখন তেজস্ক্রিয় শক্তি হিসাবে দূর্বল নিউক্লিয়ার বলের প্রকাশ ঘটে। অটম বোম হচ্ছে শক্তিশালী নিউক্লিয়ার বলের প্রমান। আর তেজস্ক্রিয় শক্তি যা অটম বোম বিস্ফরনের পর মাটিতে বা ঐ স্থানে পাওয়া যায় তা দূর্বল নিউক্লিয়ার বল। কিন্তু কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্সে মহাকর্ষের কোন স্থান নেই।
এখন বিষয় হলো কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স ও জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটি দুইটি এমন থিউরি যেটি মহাবিশ্বের সব জায়গায় কাজ করে। সে ক্ষেত্রে তারা একি হবার কথা, কিন্তু তাদের একত্রিত করা অসম্ভব হয়ে দারায়। আর আইনিস্টাইনের মৃতুর পর সেটি অন্ধকারে চলে যায়।

কার্ল সোয়ার্ডসিল্ড জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটি থেকে একটি নতুন জিনিস আবিস্কার করেন। যদি কোন বস্তুর ভর অনেক বেশি হয় এবং আয়তন অনেক ক্ষুদ্র হয় তবে জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটি অনুসারে ঐ স্থানে মহাকর্ষ বল এত বেশি হবে যার কারনে আলোও বের হয়ে আসতে পারবে না সেখান থেকে। পরবর্তীতে যার নাম দেওয়া হয় ব্লেক হোল।

750px-accretion_disk.jpg
এখন বিষয় হলো ব্ল্যাক হোলের জন্য কোন থিউরি ব্যবহার করতে হবে। কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্স যে হেতু এটি আকারে ছোট, না জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটি কারন এর ভর অনেক বেশি। দুইটি একসাথে ব্যবহার করলে দারায়না কোন অর্থ। সমধান হয়ত আছে স্ট্রিং থিউরিতে।

4 like 1 dislike
answered Jan 25, 2014 by আজাদ (4,232 points)
বিজ্ঞানের বহুল চর্চিত একট বিষয় হলো, মাল্টিভার্স তত্ত্ব। এ তত্ত্বের মূল বিষয় যেকোনো বস্তুর যেকোনো অবস্থার বিপরীতে আরেকটি অবস্থা দাঁড় করানো। এই অবস্তানটা হবে তার বর্তমান অবস্থার ঋণাত্মক। উদাহরণ হিসেবে আমরা প্রতি-পদার্থর কথা ভাবতে পারি। ধরা যাক প্রোটনের কথা। তত্ত্বানুযায়ী ধনাত্মক প্রোটনের বিপরীতে ঋণাত্মক প্রোটন থাকার কথা। সেটাকে পদার্থ বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় এন্টি-প্রোটন বা প্রতি-প্রোটন। প্রতিপদার্থ যে শুধুই কোনো থিয়োরি নয়, তার প্রমাণ বিজ্ঞানীরা দিয়েছেন পরীক্ষাগারে প্রতি-পদার্থ হাজির করে । যেহেতু প্রতি-ইলেক্ট্রন (পজিট্রন), প্রতি-নিউট্রনেরও হদিস পাওয়া গেছে, তাই প্রতি-পরামাণু যে থাকবে তাতে আর সন্দেহ কি! প্রতি-পরামাণু মানেই প্রতি-মৌল। আরে একাধিক প্রতি মৌলের মিশ্রণে তৈরি হয় প্রতি-যৌগ। ষোল কলা পূর্ণ হয়ে গেল প্রতি-পদর্থের। আর প্রতি-পদার্থ আছে নিশ্চয় প্রতি পদার্থের একটা জগৎও আছে। আর সেই জগৎ হবে আমাদের জগৎ অর্থাৎ এই মহাবিশ্বের বিপরীত একটা মহাবিশ্ব। এই মহাবিশ্বের খুব জনপ্রিয় নাম প্যারালাল ইউনিভার্স। আমাদের এই মহাবিশ্বই আর এর সমান্তরাল মহাবিশ্বই কি শেষ। আর কিছু নেই? বিজ্ঞান বলছে আছে। তাই যদি হয়, সেগুলো কোথায়, কেমন, আমরা দেখতে বা পাই না কেন। আমাদের এই মহবিম্বের যা কিছু আমরা দেখি সবই ত্রিমাত্রিক দৃষ্টিতে। মিনেকোস্কি-আইনস্টাইন এই দৃষ্টিটাকে একটু প্রসারিত করে যোগ করেছিলেন আরেকটি মাত্রা। সময়ের মাত্রা। কিন্তু বিজ্ঞান একই সাথে আরেকটি কথাও বলে, চারমাত্রার মধ্যেই আবদ্ধ নয় আমাদের মহাজগৎ। আরো বহুমাত্রা আছে। আসলে আমাদের এই চারমাত্রার মগজ দিয়ে এখনি সেই মাত্রাগুলো দেখার সক্ষমতা আমরা এখনো অর্জন করতে পারিনি। তাই বলে হচ্ছে, বহুমাত্রা যখন আছে তখন আরো মহাবিশ্বও আছে। আর তার সংখ্যা অসীম। আমাদের ত্রিমাত্রিক জগতের প্যারালাল জগতে যদি আমাদের প্রতি-অবস্থাগুলো থাকে তাহলে অন্য মহবিশ্বগুলোতে কী অবস্থা থাকবে? এইখানেই বিজ্ঞানীরা দেখছেন নতুন সম্ভবনা।

এখন যদি প্রশ্ন করা হয় আমাদের মহাবিশ্বে যখন একটা বস্তুর জন্ম হচ্ছে তখন প্যারালাল মহাবিশ্বে সেই বস্তুটির কী ঘটছে। ধরে নিলাম তার সেখানে তার প্রতি-বস্তুর জন্ম হচ্ছে। এ পর্যন্ত ঠিক আছে। কিন্তু অন্যমাত্রার অন্য মহাবিশ্বগুলোতে কী ঘটছে? এখানেই কোয়ান্টাম মেকানিক্স বলছে, যদি আমাদের চারমাত্রিক জগতের জন্ম বা মৃত্যুর কথা হিসাব করি তবে তবে অন্যমাত্রার অন্য মহাবিশ্বগুলোতে একই হিসাব খাটবে না। ধরা যাক, আমাদের মহাবিশ্ব (একই সাথে প্যারালাল মহবিশ্বে) কেউ মৃ্ত্যুবরণ করছে তাহলে আমাদের মহাগতের জন্য এই মৃত্যু নির্দিষ্ট ঘটনা। তাহলে অন্য আরেকটি মহাবিশ্বগুলোর জন্য এই মৃত্যু কোয়ান্টামের ভাষায় নির্দিষ্ট নয়। তখন এরটা হিসেব করতে গেলে অসীম কোনো মানে চলে যাবে। তেমনি অন্য আরেকটি মহাবিশ্বে যদি ওই বস্তুটার মৃত্যুঘটে তবে আমাদের মহাবিশ্বের এই মৃত্যুর হিসাব আসবে অসীম। অর্থাৎ জীবিতও আসতে পারে। এই বিষয় নিয়েই তৈরি হয়েছে নতুন তত্ত্ব। এর নাম ‘বায়োসেন্ট্রিজম’ (biocentrism) তত্ত্ব। সহজ হিসাব যেহেতু মহাবিশ্বের সংখ্যা অসীম সুতরাং জীবন-মৃত্যুর সংখ্যাও অসীম। কোথাও হয়ত সে মৃত। অন্য অসংখ্য মহাবিশ্বে তার জীবিত অবস্থা বিদ্যমান। ‘আমি কে?’—শুধু এই অনুভূতিই মস্তিষ্কে ২০-ওয়াট শক্তি সঞ্চালন করতে পারে। এই শক্তি কি মৃত্যুর সময় বিলুপ্ত হয়ে যায়? মোটেই নয়! নতুন এই তত্ত্ব বলছে, এই শক্তি এক মহবিশ্ব থেকে আরেক মহাবিশ্বে সঞ্চালন হয়। আর এই তত্ত্বের সবচেয়ে বড় ভিত্তি শক্তির নিত্যতা সূত্র। এই সুত্র মতে সূত্রের অবিনশ্বর। তাহলে মস্তিষ্কের ওই শক্তি ঝর্না মৃত্যুর পরে কোথায় যায়? দামি প্রশ্ন।

এই প্রশ্নের আপত সমাধান এই ‘বায়োসেন্ট্রিজম’ তত্ত্ব। সম্প্রতি ‘সায়েন্স’ নামের এক জার্নালে এই তত্ত্ব প্রকাশিত হয়েছে। এই তত্ত্বে দেখানো হয়েছে, কিভাবে কোনো শক্তির বা বস্তুর বিপরীতমুখী পরিবর্তন ঘটতে পারে। ধরা যাক একটা কণা, সে একটি একটা বিমের প্রক্ষিপ্ত একটা কণাকে আপনি পর্যবেক্ষণ করছেন। যখন কণাটা প্রক্ষিপ্ত হচ্ছে আপনি তখন কণাটার দিকে তাকিয়ে আছেন। মানে কণাটার অবস্থান দেখছেন। যে অবস্থান দেখলেন কণার সেই মুহূর্তের আচরণ পর্যবেক্ষণ বা হিসাব করা আপনার জন্য অসম্ভব। আবার এখন কণাটির আচরণের কথা আপনাকে ভাবতে গেলে আপনাকে কণাটিকে থামিয়ে তার আচরণ পর্যবেক্ষণ করতে হবে, তখন কিন্তু কণার সেই অবস্থান অতীত হয়ে গেছে। আবার কণাটির আচরণ যদি প্রক্ষিপ্ত অবস্থায় পর্যবেক্ষণ করতে যান, তখন দেখবেন কণাটির একটি নির্দিষ্ট অবস্থানের দিকে আর খেয়াল রাখতে পারেন নি। বায়ো সেনট্রিজমের ধারণা আমরা, সময় ও স্থান আসলে কঠিন বা জড় নয়। আপনি দূরের কোন জিনিস হাত বাড়িয়ে নিন, তাহলে অবশিষ্ট কী থাকে? কিছুই নয়। একই ব্যাপার মস্তিষ্কের ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করুন। আপনি নিশ্চয়ই কোনো বস্তুকে হাড় বা অন্যকোনো বস্তুর সাহায়্যে দেখছেন না। দেখার বিষয়টা হচ্ছে, কোনো ঘটনা থেকে আলো প্রতিফলিত হয়ে আপনার আপনার মস্তিষ্কে প্রতিবিম্ব সৃষ্টি করবে তখনই কিন্তু দেখার ব্যাপারটা ঘটে। তার মানে আপনি যা কিছু দেখছেন তা জড় পদার্থ নয়। বরং আপনার মস্তিষ্কের ভেতর পূর্ব অভিজ্ঞতা আর মনের প্রতিক্রিয়ার ফসল এই দেখার বিষয়টা। এখানে জড়ের কোনো স্থান নেই। অভিজ্ঞতা বললাম এই কারণে কোনো ঘটনা আপনি যখন দেখবেন তা কিন্তু একেবারে তরতাজা কোনো ঘটনা নয়। কিছুটা অতীতের। কোন ঘটনা থেকে আরো এসে আপনার চোখে না পড়া পর্যন্ত আপনি দেখতে পাবেন না। আলো আসতে যত কমই হোক কিছুটা সময় লাগবেই। সেই সময়টুকু পার হতে হতে সে ঘটনা কিন্ত অতীতে চলে গেছে। ‍উদাহরণ একটু বৃহত্তর দৃষ্টিতে দেখলে আরো পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাবে। সুর্যের কথাই ধরা যাক। একন যদি কোনো কারণে সুর্যের বুকে বিরাট একটা বিস্ফোরণ ঘটে, তা দেখতে আমাদের আট মিনিট সময় ব্যয় করতে হবে। অর্থাৎ আমরা যেটা দেখছি সেটা অতীত হয়ে গেছে। কিন্তু আমাদের জন্য সেটা বর্তমান। এখেনে এক্ষেত্রে সুর্যের আমরা সুর্যের আচরণ জানতে পারছি কিন্তু অবস্থান জানতে পারছি না। এখন যদি সুর্যের অবস্থান নির্দিষ্ট করে জানতে হয় তবে আমাদের দুজন পর্যবেক্ষক দরকার হবে। একজন থাকবেন পৃথিবীতে আরেকজন থাকবেন সুর্যে। ‍যিনি সুর্যে থাকবেন তিনি সুর্যের অবস্থানটা ঠিকভাবে মাপতে পারবেন, কিন্তু পৃথিবীতে সুর্যের ওই মহূর্তের অবস্থান জানা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। কারণ তার জন্য সেটা আট মিনিট অতীত হয়েছে। একটা কথা বলতে পারি আমরা সবসময় অতীতে বাস করছি঳। কিন্তু আমরা বর্তমানের কোনো ঘটনা যেটাকে জড় বলছি, সেটা মুলত আমাদের পূর্বঅভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান। আর অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান থেকে জড় হিসেবে তাকে আখ্যায়িত করা কঠিন। এখানে মস্তিষ্কের ওই অনুরণন শক্তিটা আসল। অতএব সময় ও স্থানকে বা জড়কে আমরা একই ক্যাটাগরিতে ফেলতে পারি।

অতীতের কথা একটু ভাবা যাক। অতীতকে যদি বাস্তবে খুঁজতে যান নিরাশ হতে হবে। কিন্তু অতীতকে অস্বীকার করার উপায় আছে? আর বর্তমান! আদৌ কি বর্তমানের কোনো অস্তিত্ব আছে। একট যুগকে আমাদের নিজেদের স্বার্থে বর্তমান বলে আখ্যায়িত করি। কিন্তু আরো সু্ক্ষ্ম দৃষ্টিতে যদি বিচার করা হয় তাহলে বর্তমানের অস্তিত্ব কি আছে? মুহূর্তের মধ্যে কোনা ঘটনা অতীত হয়ে যায়। যেটাকে আমরা মুহূর্ত বলছি তার দৈর্ঘ্যেই বা কতটুকু?—হিসাব করা যায় কি? আবার ভবিষ্যৎ, অতীতের মতো বাস্তব না হলেও তাকে অস্বীকার করার উপায় নেই। আর সেই ভবিষ্যতের নীরিখে যদি জীবন-মৃত্যুকে বিচার করেন তাহলে সেটা দাঁড়ায়, আপনি জীবত অথবা মৃত। বর্তমানের কথাই ভাবুন (পরম বর্তমান নয়)—আপনি হয়তো গাড়ি নিয়ে কোথাও বেরিয়েছিন। পথিমধ্যে আপনার গাড়ির চাকা নষ্ট হয়ে গেল। আপনি দাঁড়িয়ে পড়লেন। কিন্তু আপনার কোনো স্বজন বাড়িতে বসে ভাবছেন আপনি গাড়িতে আছেন আর আপনার গাড়ি চলমান। এক্ষেত্রে দুটো ভিন্ন পর্যবেক্ষকের দৃষ্টিতে দু’রকম ফলাফল পাওয়া গেলো। তেমনি জীবন-মৃত্যুর ক্ষেত্রেও একই ব্যক্তি কারো কাছে মৃত এবং অন্য ব্যক্তির কাছে জীবিত। তিনি হয়তো জানেনই না ওই ব্যক্তি মারা গেছে।

অসীম কালে ও স্থানে মৃত্যুই শেষ কথা হতে পারে না। আইনস্টানের উদ্ধৃতি থেকে বলা বলা যায়, সময় অতীত-বর্তমান-ভবিষ্যতের মধ্যে পার্থক্য শুধু একগুঁয়ে বিভ্রমের। সময়ের বাইরে হিসাব করলে বা অসীম সময়ে হিসাব করলে মানুষের জীবন-মৃ্ত্যুর ফলাফল দাঁড়ায় সে জীবিত অথবা মৃত। অসীম মহবিশ্বের হিসাবে তুচ্ছাতিতুচ্ছ এক মানুষের জীবন-মৃত্যুর হিসাব অতি গৌণ। তবু মৃত্যুই শেস কথা নয়। এই মৃতের যে শক্তিটুকু ছিল তা হয়তো আরেকটা কোনো মহাবিশ্বে জীবন হিসেবে বিকশিত হচ্ছে।
commented Feb 26, 2017 by Smbulbul (169 points)
অসাধারণ লেখনী। খুব ভালো লাগলো। :)
4 like 1 dislike
answered Jan 25, 2014 by আজাদ (4,232 points)

Brian Greene এর বই The Elegant Universe এর একটি সংক্ষিপ্ত অনুবাদ করার চেষ্টা করেছি।

জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটির জনক বিজ্ঞানী আইনিস্টাইন তার জীবনের শেষ তিন দশক কাটিয়েছিলেন এমন একটি সমীকরণরে দাড়া করাতে যা দিয়ে মহাবিশ্বের যেকোন কিছু ব্যাখ্যা করা সম্ভব। সেটা যতই ক্ষুদ্র বা বড় হোক না কেন। গত দুইশত বছর ধরে আমরা যেসব থিউরি, সমীকরণ বা তথ্য পেয়েছি তা থেকে উপলব্ধি হয়, আমাদের এই আবিষ্কার শুধু মাত্র একটি নির্দির্ট দিকে আমাদের নিয়ে যেতে চাচ্ছে। আর তা হলো Unification. আইনস্টাইন থেকে শুরু করে অনেকেই চেষ্টা করেছেন এমন একটি সমীকরণ দাড়া করাতে যার পর আমাদের আর কোন কিছু ব্যাখার ত্রুটি থাকবে না। আমরা মহাবিশ্বের সৃষ্টি থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত সব কিছু ব্যাখা দিতে পারবো। আর গত তিন দশক ধরে মনে হচ্ছে আমাদের এই সমস্যার সমাধান শুধু দিতে পারে স্ট্রিং থিউরি।

theelegantuniverse.jpg

ঘটনার শুরু ৩০০ বছর পূর্বে নিউটনের মাথায় আপেল পড়ার গল্প থকে। নিউটন আবিষ্কার করেন যে গাছ থেকে আপেল পড়া আর সূর্যের চারপাশে পৃথিবীর চক্রাকারে ঘুরা মূলত একই কারণে হয়। যার নাম দেন তিনি মহাকর্ষ, Gravity. এই প্রথম কোন বিজ্ঞানী দুটি আলাদা তত্ত্বকে একত্রিত করে। একটি সাধারণ সমীকরণে দাড়া করান। এটি ছিল Unification এর প্রথম সুচনা।

কিন্তু নিউটনের এই থিউরির পর মহাবিশ্বরে যে রূপটা ধরা পরে সমীকরণের মাধ্যমে তা নিয়ে আইনিস্টাইনই একটু নাখুশ ছিলেন। কারণ নিউটনের তত্ত্ব মতে মহাকর্ষ আসীম পর্যন্ত বিস্তৃত এবং মহাকর্ষের বলের পরিবর্তনে অন্য অনেক দূরের বস্তুর উপর একই সময়ে অনুভূত হয়। প্রকৃতপক্ষে নিউটনের জানা ছিল না। মহাকর্ষ কিভাবে কাজ করে বা কার মাধ্যমে মহাবিশ্বে মহাকর্ষ বিস্তৃত হচ্ছে।

আইনস্টাইন ২০০ শতকে এসে প্রমাণ করেন। মহা বিশ্বের কোন বস্তুর গতি আলোর গতির উপরে হতে পারে না। আলোর গতি মহাবিশ্বের শেষ গতিসীমা। আর এই গতিসীমা নিউটনের সমীকরণ মানে না। তাই আইনিস্টাইন খুঁজতে থাকেন এমন কোন ব্যাখা যার দ্বারা প্রমাণ করা যাবে মহাবিশ্বরে প্রকৃত রূপ ও মিলবে মহাকর্ষের আসল পরিচয়।

brian_greene_world_science_festival.jpg

দশ বছর অক্লান্ত পরিশ্রমের পর আইনস্টাইন প্রকাশ করেন তার বিখ্যাত তত্ত জেনারেল থিউরি অফ রিলিটিভিটি যা মহাবিশ্বের চেহারা পাল্টে দেয়। এই থিউরি প্রমাণ করে মহাকর্ষ বল কিভাবে কাজ করে এবং এর গতিসীমা আলের গতির বেশি নয়।

নিউটের মতে মহাকর্ষ বল প্রত্যেক বস্তুর উপর শূণ্য সময়ে কাজ করে। সূর্যের যে ভরের জন্য পৃথিবীর তার চারপাশে ঘুরে। সেই ভর হতে উৎপন্ন মহাকর্ষ বল উঠিয়ে নিলে পৃথিবী তাৎক্ষণিকতার কক্ষপথ হতে বিচ্ছুরিত হয়ে নিউটনের প্রথম সূত্রের মত আচরন করবে। পৃথিবী অসীমের পথে চালিত হবে। কিন্তু আইনস্টাইন প্রমাণ করেন মহাকর্ষ বলের গতি আলোর গতির সমান। আর সূর্য থেকে পৃথিবীর আলো দেখতে সময় লাগে ৮ মিনিটের উপরে। তাহলে সূর্য যদি হঠাৎ ধ্বংস হয়ে যায় তবে তা আমরা জানতে পারব ৮ মিনিট পরে। তাহলে কথা হল মহাকর্ষ বল কীভাবে কাজ করে। আইনিস্টাইনের থিউরি সেই ব্যাখ্যা দেয় খুব সহজেই। তিনি চিন্তা করেন মহাবিশ্বের তিনটি সাধারণ মাত্র(থ্রি ডাইমেণশন) এবং সময় সহ ৪টি মাত্রার একটি জগৎ। আমরা যদি চিন্তা করি তিনটি সাধারণ মাত্রা ও সময় মিলে একটি ২ মাত্রার জগৎ তাহলে জিনিসটা আরো সহজ হয়

আমারা মনে করি মহাবিশ্বের সময়-স্থান একটি বিছানার চাদর, এখন এর কোন স্থানে আমরা যদি একটি ভারি বল রাখি তবে দেখা যাবে ঐ স্থানে চাদরটি ডেবে গিয়েছে এবং আশেপাশে বৃত্তকার একটি কার্ভের সৃষ্টি হয়েছে। এখন আমরা যদি ছোট একটি বল এই কার্ভেচারে ছেড়ে দিই তখন তা ঐ কার্ভেচার বারবার ঘুরতে থাকবে ( যদিও ছোট বলটি ঘুরতে ঘুরতে বড় বলটির কাছে চলে আসবে এই ক্ষেত্রে কেন আসবে না তা পরে ব্যাখ্যা করব। ) তাহলে ভরের কারণে মহাবিশ্বের প্রতিটি স্থানে এভাবে ডেবে যাচ্ছে। আর এই চারপাশে ঘুরছে বাকি হালকা বস্তু গুলো।জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটির জনক বিজ্ঞানী আইনিস্টাইন তার জীবনের শেষ তিন দশক কাটিয়েছিলেন এমন একটি সমীকরণরে দাড়া করাত যা দিয়ে মহাবিশ্বের যেকোন কিছু ব্যাখ্যা করা সম্ভব।

General Theory of Relativity

সেটা যতই ক্ষুদ্র বা বড় হোক না কেন। গত দুইশত বছর ধরে আমরা যেসব থিউরি, সমীকরণ বা তথ্য পেয়েছি তা থেকে উপলব্ধি হয়, আমাদের এই আবিষ্কার শুধু মাত্র একটি নির্দির্ট দিকে আমাদের নিয়ে যেতে চাচ্ছে। আর তা হলো Unification. আইনস্টাইন থেকে শুরু করে অনেকেই চেষ্টা করেছেন এমন একটি সমীকরণ দাড়া করাতে যার পর আমাদের আর কোন কিছু ব্যাখার ত্রুটি থাকবে না। আমরা মহাবিশ্বের সৃষ্টি থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত সব কিছু ব্যাখা দিতে পারবো। আর গত তিন দশক ধরে মনে হচ্ছে আমাদের এই সমস্যার সমাধান শুধু দিতে পারে স্ট্রিং থিউরি।

4 like 2 dislike
answered Jan 25, 2014 by আজাদ (4,232 points)

জেনারেল থিউরি অফ রিলিভিটি অনুযায়ী মহাবিশ্ব এমন একটি রুপের প্রকাশ করে যা খুব শান্ত। কিন্তু কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্সের সূত্র অনুযায়ী সাব এটমিক লেভেলে মহাবিশ্ব খুবই অশান্ত। যা দুইটি থিউরিকে আলাদা করে।

elegant_universe_2_of_8.jpg

স্ট্রিং থিউরি সাব এটমিক লেভেলে মহাবিশ্ব খুবই শান্ত প্রমান করে এবং মহাবিশ্বকে একটি সঠিক রুপ দান করবে সবার ধারনা।

elegant_universe_2_of_4.jpg

স্ট্রিং থিউরির আবিষ্কার একটি আকষ্মিক ব্যাপার।1968 ইটালিয়ান ফিজিসিস্ট গ্যাবরিয়াল ভেনিয়াটসানো (http://en.wikipedia.org/wiki/Gabriele_Veneziano) এমন একটি সমিকরন খুজচ্ছিলেন যা শক্তিশালী নিউক্লিয়ার ফোরস কে ব্যাখা করবে। তিনি 200 বছর পুরাতন একটি বই থেকে আবিষ্কার করেন ওয়লারের গামা ফাংশন (Euler Beta function-http://en.wikipedia.org/wiki/Beta_function) যা মুলত প্রকাশ করে শক্তিশালী নিউক্লিয়ার ফোরস। যার পর তিনি খুব খ্যাতে লাভ করেন। তার এই আবিষ্কারের পর লিউনারড সাসকিন্ড গামা ফাংশন নিয়ে কাজ করেন।

http://en.wikipedia.org/wiki/Leonard_Susskind

তার গবেষনা শেষে তিনি উপলব্ধি করেন সমীকরনটি এমন একটি কিছু প্রকাশ করছে যার আকার একটি সুতার মত এবং যা নিয়ে টানা টানি করা যায় ইচ্ছে মত। কিন্তু অন্যারা এটিকে অবাস্তব বলে প্রকাশ থেকে বিরত রাখেন।

elegant_universe_2_of_5.jpg

এর মধ্যে শুরু হয় পাট্রিকাল আবিষ্কারের যুগ। প্রতিদিন নতুন নতুন পাট্রিকাল আবিষ্কার হতে থাকে। যা সব ধরনের সূত্রকে সমরথন করে। আর এর মধ্যে আবিষ্কার হয় মেসেনজার পাট্রিকাল। মেসেনজার পাট্রিকালের কাজ হলো এক কনিকা থেকে অন্য কনিকাতে মেসেনজার পাট্রিকাল আদান প্রদানের মাধ্যমে আকর্ষন সৃষ্টি করা।

এসব পাট্রিকাল দিয়ে সব ব্যাখা করা সম্ভব হলেও মহাকর্ষ ব্যাখা করা সম্ভব হয়নি।

elegant_universe_2_of_6.jpg

1973 সোয়ার্জ (http://en.wikipedia.org/wiki/John_Henry_Schwarz) এবং মাইকেল গ্রিন (http://en.wikipedia.org/wiki/Michael_Green_(physicist)) স্ট্রিং থিউরি নিয়ে আগান। যেখানে অন্যরা থেকে গিয়েছিলো। স্ট্রিং থিউরিতে তখন দুইটি সম্যাসা বিদ্যমান ছিলো। একটি হলো গানিতিক সম্যাসা আর অন্যাটা হলো একটি ভরহীন কনিকা। তাদের নিকট তখন দুই স্ট্রিং থিউরির সমীকরন ছিলো, যা ছিলো একে অন্য থেকে আলাদা। অক্লান্ত পরিশ্রমের পর তারা প্রমান করেন স্ট্রিং থিউরিতে গানিতিক সম্যাসা নেই এবং ভরহীন কনিকা হলো গ্রেভিটন।

4,676 questions

5,801 answers

1,861 comments

15,955 users

76 Online
0 Member And 76 Guest
Most active Members
this month:
    Gute Mathe-Fragen - Bestes Mathe-Forum
    ...