Welcome to Zero to Infinity Q&A. To ask questions or answer any question please Register first. Thank You.

লেজার চিকিৎসা কতটা কার্যকর? এর কি কোনো খারাপ দিক আছে? থাকলে কেন এবং সেগুলো কি কি, সেই সমন্ধে বিস্তারিত তথ্য জানতে চাই?

7 like 0 dislike
8,259 views
asked Nov 1, 2013 in Health & Medicine by Mousumi (127 points)
0% Accept Rate
Share at -

4 Answers

3 like 0 dislike
answered Jan 26, 2014 by আজাদ (4,233 points)

লেজার চিকিৎসা বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানের অনেক গুলো শাখায় ব্যবহার হচ্ছে বিভিন্ন রূপে। স্ক্যান থেকে শুরু করে অস্ত্রপচার - সবখানেই আছে এর উপস্থিতি। এখন পর্যন্ত লেজার চিকিৎসার কোনো খারাপ দিক পাওয়া যায়নি বলে মনে হয়। চিকিৎসকের উপর কিন্তু অনেকটুকু নির্ভর করে - কারণ লেজার অনেক শক্তিশালী একটি জিনিস - ভুল ভাবে ব্যবহার করলে অবস্যই খারাপ হবে, বিশেষ করে লেজার অস্ত্রপচারের ক্ষেত্রে। চোখের চিকিৎসায় লেজার হরদম ব্যবহার হচ্ছে এবং যখনই ডাক্তার ভুল করেন বা অদক্ষ ভাবে কাজ করেন - বেশিরভাগ সময় আবার ডাক্তারের কাছে যেতে হয়। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার আলোকে আমি বলতে পারি যে লেজার চিকিৎসা অত্যন্ত কার্যকর এবং এর কোনো খারাপ দিক নেই। আপনি বলতে পারেন যে লেজার চিকিৎসা হলো আমাদের নতুন শতাব্দীর চিকিৎসা এবং আজ যা দেখছি তা হলো কেবল শুরু।

3 like 0 dislike
answered Jan 26, 2014 by আজাদ (4,233 points)

প্রতিটি নারী-পুরুষের শরীরে কম-বেশি লোম রয়েছে। এটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু মাঝে মাঝে এই লোম সমস্যা নিদারুণ বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে। যদি মেয়েদের মুখে স্বাভাবিকের চেয়ে অধিক লোম পরিলক্ষিত হয়। এ ধরনের সমস্যা অনেক ক্ষেত্রে সামাজিক সমস্যায় রূপ নেয়। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে বিব্রতকর অবস্থার সৃষ্টি করে। আমি শুরুতেই বলেছি নারী-পুরুষের শরীরে লোম তৈরি হওয়ার জন্যএক ধরনের হরমোন দায়ী। প্রত্যেক নারী ও পুরুষের শরীরে টেসটেসটেরননামক এক ধরনের হরমোন রয়েছে। এই টেসটেসটেরন হরমোনকে পুরুষ হরমোন নামে অভিহিত করা হয়। পুরুষের পাশাপাশি মেয়েদের শরীরেও এই টেসটেসটেরন হরমোন সামান্য পরিমাণ থাকে। কিন্তু মেয়েদের শরীরে এই হরমোনের পরিমাণ বেশি থাকলে অথবা হরমোনেরপরিমাণ বেড়ে গেলে মেয়েদের শরীরেওপুরুষের মত অধিক লোম গজাতে পারে। ডাক্তারী ভাষায় মেয়েদের এইশারীরিক সমস্যাটিকে ‘হারসুটিজম’ বলা হয়। যদিও এই ‘হারসুটিজম’ সমস্যাটি একটা হরমোনজনিত সমস্যা তবুও চিকিৎসার পাশাপাশি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মেয়েদের শরীরের অবাঞ্ছিত লোম অপসারণে লেজার চিকিৎসা এক বৈপ্লবিক সুযোগ এনে দিয়েছে। লেজারের মাধ্যমে নারী-পুরুষের শরীরের অবাঞ্ছিত লোম দূর করা যায়। সাধারণত মহিলাদের আপার লিপ বা ঠোঁটের উপরের অংশে ও মুখের অন্যান্য স্থানে অবাঞ্ছিত লোম গজাতে পারে। অতীতে এ ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রে দেশে লেজার চিকিৎসা ছিল না। বর্তমানে একাধিকলেজার সেন্টারে এ ধরনের সমস্যার চিকিৎসা হচ্ছে। তবে মনে রাখতে হবে লেজারের মাধ্যমে মেয়েদের মুখের লোম অপসারণ কোন স্থায়ী ব্যবস্থা নয়। এই পদ্ধতিকে বলা হয় ‘হেয়ার রিডাকশন’। অনেকে ভুল তথ্য দিয়ে রোগীদের প্রলুব্ধ ও প্রতারিত করে আসছে। যারা লেজারেরমাধ্যমে মুখের লোম অপসারণ করতে চান তাদের অবশ্যই সংশিস্নষ্ট লেজার সেন্টারের বিশেষজ্ঞের কাছে জানতে চাওয়া উচিত হাজার হাজার টাকা ব্যয় করে লেজার-এর মাধ্যমে শরীরের লোম অপসারণ করলেপুনরায় লোম গজাবে কি না। কোনভাবেই লেজার বিশেষজ্ঞ বা স্কিন বিশেষজ্ঞের কাছে এ প্রশ্নের জবাব না পাওয়া পর্যন্ত লেজার-এর মাধ্যমে লোম অপসারণের সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত নয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও সিঙ্গাপুরের একাধিক লেজার সেন্টারে প্রশিক্ষণ নেয়ার সময় কথনও বিশেষজ্ঞদের বলতে শুনিনি লেজারের মাধ্যমে স্থায়ীভাবে মুখের লোম বা শরীরেরঅবাঞ্ছিত লোম অপসারণ করা যায়। তবে একথাটি অস্বীকার করা যাবে না যে লেজারের মাধ্যমে হেয়ার অপসারণের পর দীর্ঘদিন আর লোম গজায় না। অনেক ক্ষেত্রে লেজারের মাধ্যমে মুখের অবাঞ্ছিত লোম অপসাণের পরও তিন মাস, ছয় মাস বা একবছর পর আবার কিছু কিছু লোম গজাতেপারে। এ ক্ষেত্রে পুনরায় দু’/একবার লেজার ব্যবহার করার প্রয়োজন হয়। তবে লেজার করার পর শরীরের উক্ত স্থানে লোম গজানোরমাত্রা থাকে অনেক কম। সাধারণতঃ লেজারের মাধ্যমে অবাঞ্ছিত লোম অপসারণের ক্ষেত্রে প্রতি মাসে একবার করে কমপক্ষে পাঁচ থেকে সাতটি সেশন করতে হয়। অনেকে ক্ষেত্রে দশ থেকে পনের সেশন পর্যন্ত লাগাতে পারে।

আমি পূর্বেই বলেছি মেয়েদের মুখেরঅবাঞ্ছিত লোম একটি হরমোনজনিত সমস্যা এবং এই রোগটির নাম ‘হারসুটিজম’। অনেক লেজার বিশেষজ্ঞ লেজারের মাধ্যমে অবাঞ্ছিত লোম অপসারণের পাশাপাশি তিন থেকে ছয় মাস পর্যন্ত চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। লেজার এবং ওষুধ একসঙ্গে অধিক কার্যকর। তবে হরমোনজনিত চিকিৎসার ক্ষেত্রে অবশ্যই রোগীকে যে কোন হরমোন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়া উচিত।তাই শরীরের অবাঞ্ছিত বা অধিক লোম অপসারণ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই ভালো করে চিন্তা-ভাবনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে এ কথাটি সব সময় মনে রাখতে হবে লেজারকোন স্থায়ী ব্যবস্থা নয়। শুধু মুখের অবাঞ্ছিত লোম অপসারণ নয়, লেজার চিকিৎসার মাধ্যমে মুখের লাবণ্যতা তৈরি, ব্রণ চিকিৎসা, দাগতোলা কোনটিই স্থায়ী নয়। এ বিষয়টি পরে আলোচনা করব। তবে যারা লেজারের মাধ্যমে মুখের অবাঞ্ছিত লোম অপসারণ করতে চান তাদের প্রথমে উচিত সংশিস্নষ্ট বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী মেয়েদের মুখে অবাঞ্ছিত লোম গজানোর কারণ নির্ণয়। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত আপনি লেজার করবেন কিনা। পাশাপাশি এটাও মনে রাখতে হবে লেজার কোনভাবেই লোম সমস্যার স্থায়ী সমাধান নয়। সংশিস্নষ্ট বিশেষজ্ঞদেরও রোগীদের এই তথ্যটি জানানো উচিত। তথ্য গোপন করে রোগীর কাছ থেকে বিপুল অর্থ আদায় করা এক ধরনের অপরাধ। মোট কথা লেজার চিকিৎসার ভাল-মন্দ জেনে যিনি লেজার চিকিৎসায় উদ্বুদ্ধ হবেন কেবল তারই লেজার করা উচিত।

 

2 like 0 dislike
answered Jan 26, 2014 by আজাদ (4,233 points)
edited Jul 7, 2015 by **কৌতুহলী**

লেজার কী
লেজার হচ্ছে বিশেষ এক ধরনের আলোকরশ্মি, যা ত্বকে প্রবেশ করে ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় পরিবর্তন ঘটায়।

কীভাবে কাজ করেঃ সূর্যের আলোকরশ্মিকে কতগুলো তরঙ্গ দৈর্ঘ্যে (ওয়েভলেন্‌থ) ভাগ করা হয়। ত্বকে লেজার চিকিৎসার জন্য লক্ষ্যবস্তুর শোষণের ধরনের সঙ্গে মিলিয়ে নির্দিষ্ট তরঙ্গ দৈর্ঘ্যে নির্ণয় করা হয়। উদ্দেশ্য এমন একটি ওয়েভলেন্‌থ পাঠানো, যা একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তু দ্বারা শোষিত হবে। ফলে তাপ জমা হয়ে লক্ষ্যবস্তুকে ধ্বংস করবে। এই লক্ষ্যবস্তুকে বলা হয় ক্রোমোফোর, ত্বকে যা পানি, হিমোগ্লোবিন ও মেলানিন হিসেবে উপস্থিত থাকে। আদর্শগতভাবে এই নির্দিষ্ট ওয়েভলেন্‌থে পার্শ্ববর্তী কোনো সুস্থ বস্তু ক্ষতিগ্রস্ত হয় না। দক্ষ লেজার শল্যবিদ সময় ও শক্তি নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আশপাশের বস্তুর সামান্যতম ক্ষতিও রোধ করতে পারেন। লেজার শুধু চেহারার সৌন্দর্য বাড়ানোই নয়, বরং হ্যারপিও ও মস্তিষ্কের চিকিৎসা, জরায়ুর টিউমার, চোখ ও দাঁতের অসুখ, নাকডাকা ও টনসিল ফোলা, সর্বোপরি ক্যান্সারের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হচ্ছে। শ্বাসনালি, খাদ্যনালি, মূত্রনালির বিভিন্ন অসুখে এবং হাড়ের সমস্যায় লেজার এখন নিয়মিত ব্যবহৃত হচ্ছে।

লেজারের মাধ্যমে সৌন্দর্য বৃদ্ধিঃ মুখের বলিরেখা দূর করে হারানো সৌন্দর্য ফিরে পাওয়ার জন্য ফটো রেজুভেনেশন করা হচ্ছে। এভাবে ব্রণের দাগ, বসন্তের দাগ এবং রোদে পোড়া দাগ দূর করা যায়। যেকোনো বয়সের লোকই এখন ত্বকের জৌলুশ বাড়াতে লেজারের সাহায্য নিতে পারেন। সাধারণত প্রতিমাসে একবার করে কয়েক মাস পর্যন্ত রোগের প্রকারভেদে সমস্যা সেরে ওঠা পর্যন্ত লেজার চিকিৎসা দেওয়া হয়।
জন্মদাগ সারাতে লেজারঃ জন্মদাগ সারাতে লেজার বেশ সফলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। একদম ছোট শিশুকেও লেজার চিকিৎসা দেওয়া যায় এবং কয়েক মাসের মধ্যে ধীরে ধীরে এসব দাগ মিলিয়ে যায়।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ লেজার খুব উন্নত ধরনের এক চিকিৎসাপদ্ধতি, কিন্তু অন্যান্য শল্যচিকিৎসার মতো এখানেও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নির্ভর করে লেজার শল্যবিদের দক্ষতা, রোগীর শরীরের অংশ এবং ত্বকের ধরনের ওপর। লালচে হওয়া, ফুলে ওঠা, ত্বক কোঁচকানো কিংবা প্রদাহোত্তর দাগ দেখা দিতে পারে। কালো ত্বকের রোগীদের ক্ষেত্রে বেশি সমস্যা দেখা দেয়।

সতর্কতাঃ চোখে লেজার রশ্মি যাতে না লাগে, সে জন্য রোগীর চোখে আইশিল্ড লাগিয়ে এবং সার্জনের চোখে নির্দিষ্ট তরঙ্গ দৈর্ঘ্যে গগল্‌স পরতে হয়। চিকিৎসা শুরুর আগেই রোগীকে লেজারের ফলাফল, সুস্থতা ও স্বাভাবিক চেহারা ফিরে পেতে এবং পুনরায় কাজে ফিরে যেতে কেমন সময় লাগবে, কী কী ধরনের সমস্যা হতে পারে এবং এর নেতিবাচক প্রভাব সম্পর্কে বুঝিয়ে বলা দরকার।

2 like 0 dislike
answered Jan 26, 2014 by আজাদ (4,233 points)
যেসব ক্ষেত্রে লেজার চিকিৎসা করা হয়
*স্থায়ীভাবে মহিলাদের অবাঞ্ছিত লোম দূর করতে।
* অ্যান্টিবায়োটিক ছাড়া ব্রণের কার্যকর চিকিৎসায়।
*ব্রণ এবং চিকেন পক্সের কারণে মুখম-লে সৃষ্ট গর্ত পুরোপুরি দূর করতে।
*লেজার ফটোডাইনামিক থেরাপি এবং মেলানোসাইট ট্রান্সপ্লানটেশনের মাধ্যমে অধিকাংশ শ্বেতী রোগের সম্পূর্ণ নিরাময়ে।
*মুখে বিভিন্ন ধরনের কালো দাগ, যেমন_ মেলাজমা (মেছতা) দূর করতে।
*এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের চর্মরোগ, যেমন_ সোরিয়াসিস, অ্যাকজিমা, অ্যামাইলয়ডোসিস, কিলয়েড বা ত্বকের কাটা কিংবা ক্ষত অঞ্চল পুরু হয়ে বেড়ে ওঠা, ত্বকের ক্যান্সার ইত্যাদির চিকিৎসায়।
*বিনা অপারেশনে মুখের বলিরেখা, তিল ও অস্বাভাবিক কোনো টিউমার দূর করা।
*আগুন অথবা এসিডের মাধ্যমে মুখম-ল-শরীর পুড়ে গেলে ক্ষতের কার্যকর চিকিৎসা।
*বিভিন্ন চর্মরোগ ছাড়াও নাক, কান, গলা, কিডনি এবং প্রোস্টেটের বিভিন্ন অপারেশন, অর্থোপেডিক্স ও স্পাইনাল সার্জারি, বিভিন্ন গাইনি সার্জারি, চোখ এবং অন্যান্য সার্জারিতে

Question followers

0 users followed this question.

Related questions

4,677 questions

5,802 answers

1,861 comments

16,023 users

95 Online
0 Member And 95 Guest
Most active Members
this month:
  1. Reduan Hossain Riad - 1 points
  2. The Rysul - 1 points
Gute Mathe-Fragen - Bestes Mathe-Forum
...