ডিম আগে নাকি মুরগি আগে? বিজ্ঞান কি বলে?

ডিম আগে নাকি মুরগি আগে? এই প্রশ্নটি নিয়ে আমরা সবাই ছোটবেলায় অনেক মজা করেছি। কিন্তু বিষয়টি মজার হলেও রীতিমত গবেষণারও বটে। এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে অনেক বিজ্ঞানীরই মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হয়েছে। শেষ পর্যন্ত একটি সমাধানে এসে দাঁড়িয়েছেন তারা। তবুও অনেকেই তাদের উত্তর মানতে নারাজ। কেউ ডিমের পক্ষে যুক্তি দাড় করায় তো কেউ মুরগির পক্ষে। কারো যুক্তিকেই সেভাবে খণ্ডন করা যায় না। তো আসুন দেখি বিজ্ঞান এ ব্যাপারে কী বলে?

 

মুরগির পক্ষে যুক্তিঃ বিজ্ঞান বলে একমাত্র মুরগির শরীরের ভিতরে থাকলেই ডিমের অস্তিত্ব সম্ভব। ওভোক্লেডিডিন-17 নামক একটি প্রোটিন ডিমের খোসা তৈরি হতে সাহায্য করে। কুসুমের বৃদ্ধি ও নতুন মুরগির জন্ম হতে এই খোসা ও ফ্লুইড খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রোটিনের ক্যালসিয়াম কার্বোনেটকে ক্যালসাইট ক্রিস্টালে পরিণত করে যা ডিমের খোসার তৈরি করে। অনেক প্রাণীর শরীরের হাড়ের মধ্যেও ক্যালসাইট ক্রিস্টাল পাওয়া যায়। কিন্তু মুরগির শরীর যে কোনো প্রাণীর থেকে এই ক্রিস্টাল বেশি তাড়াতাড়ি তৈরি করে। তাই মুরগিই ডিমের আগে এসেছে।

 

ডিমের পক্ষে যুক্তিঃ ডিমের পক্ষে যুক্তি দিতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা চলে গিয়েছেন সৃষ্টির আদিতে। সৃষ্টির প্রথমে পৃথিবীতে এত প্রাণী ছিল না, আস্তে আস্তে নতুন সব প্রাণের আবির্ভাব হয়েছে। যে কোনো প্রাণীতেই যে কোনো সময় মিউটেশন বা জিনগত রদবদল হতে পারে, এটা মানুষের ক্ষেত্রেও অনেক সময় হয়ে থাকে। মুরগি আসলে আগে কোনো পাখি অথবা সরীসৃপ ছিল। এবং সেই পাখি অথবা সরীসৃপের ডিমে ঘটে যাওয়া হঠাৎ মিউটেশন বা জিনগত রদবদল ফলে সৃষ্টি হয়েছিল আদিম পাখিদের এবং যে কোনো প্রাণী পরিবেশের মাধ্যমে আকার আকৃতির পরিবর্তন ঘটে। তাই প্রথম অবস্থায় যে মুরগি হয়েছিল তা হয়ত অন্য ধরনের ছিল। এদের দ্বারা উৎপন্ন ডিমকে যদি প্রটো-চিকেন বলা হয় তবে প্রটো-চিকেন যে ডিম পেরেছে সেই ডিম থেকেই বর্তমান মুরগির আবির্ভাব ঘটে। যেহেতু মিউটেশন শুধুমাত্র ডিম বা ভ্রুণের মধ্যেই ঘটে তাই ডিম আগে আসে, তারপর আসে মুরগি।

 

সঠিক উত্তরঃ মুরগি আগে এসেছে বললে প্রশ্ন হলো, “মোরগ ছাড়া মুরগি ডিম দিলো কীভাবে?” কিন্তু যদি ডিম আগে এসেছে বলেন তাহলে প্রটো-চিকেন দিয়ে এই যুক্তিটি খুব সহজেই খণ্ডানো যায়। তাই সবকিছু বিবেচনা করে বেশিরভাগ বিজ্ঞানীই বলেছেন যে, মুরগি নয়, ডিমই আগে এসেছে। উইকিপিডিয়া এবং ইন্সটিটিউট ফর ক্রিয়েশন রিসার্জ (ICR)ও বলছে যে ডিমই আগে এসেছে।